1. admin@narsingdinews24.com : মাসুদ খান : মাসুদ খান
  2. kdalim@gmail.com : ডালিম খান : ডালিম খান
  3. masudkhan89@yahoo.com : মোমেন খান : মোমেন খান
এই মাত্র পাওয়া :
ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সরকারি সম্পত্তির উপর আবারো গড়ে উঠতেছে ব্যাঙের ছাতার মত নতুন স্থাপনা বিপুল ভোটে বিজয়ী হলেন মনোহরদী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আ.লীগের প্রার্থী আমিনুর রশিদ সুজন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ চলছে মনোহরদী পৌরসভায় আমদিয়া ইউনিয়নে ফাইনাল ফুটবল টুর্নামেন্টে খেলা অনুষ্ঠিত নরসিংদীতে ডিবি পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ চিহ্নিত ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার শিবপুরে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন ভূইয়া স্মরণে আলোচনা সভা ও শীতবস্ত্র বিতরণ নরসিংদী পৌরসভার নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হারুন অর রশিদ শিবপুরে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শীতার্ত দুস্থ মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ শিবপুরে নিহত ১০ পুলিশ সদস্যের ১০ম মৃত্যু বার্ষিকীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের পুষ্পস্তবক অর্পণ শিবপুরে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১০ পুলিশ সদস্যের ১০ম মৃত্যু বার্ষিকীতে জেলা পুলিশের পুষ্পস্তবক অর্পণ

নরসিংদী পলাশে বাল্য বিয়ে রোধে উপজেলা প্রশাসনের উঠান বৈঠক

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৫৪ দেখেছেন

ডালিম খান /দেশে অনেক আগে থেকে বাল্য বিবাহের প্রথাটি চালু ছিলো। কিন্তু সরকারসহ বিভিন্ন সংস্থা যখন দেখলো যে এই বাল্য বিবাহের জন্য স্বামী-স্ত্রীর দ্ব্ন্ধ, শিশু জন্মের সময় সমস্যা, জন্মের পর শিশুর অপুষ্টিহীনতা নিয়ে সামাজিক ব্যাধিতে রুপ নিয়েছে। তখন সরকার বাল্য বিয়েকে বন্ধ করার জন্য ছেয়ে মেয়ের বয়স নির্ধারণ করেন। সেই হিসেবে একজন মেয়েকে কর্মপক্ষে ১৮ বছর এবং একজন ছেলেকে ২১ বছরের হলেই তখন বিয়ে উপযুক্ত হিসেবে কার্যকর করা হয়।
কিন্তু এদেশে দেখা গেছে যে, এখনো কোন কোন অঞ্চল বেধে যেখানে শিশুর হার কিছুটা কম সেখানে কুসংষ্কার ও ধর্মীয় গোড়ামী রয়েছে সেসব অঞ্চলে বাল্য বিয়ে এখনো হয়ে থাকে। আর সরকারের দায়ত্বপালনকারী মাঠ পর্যায়ের প্রশাসনের লোকজন সেই বিয়ে ঠেকাতে রাত দিন ছুটে চলেন গ্রামাঞ্চলে। আর এতেও দেখা দেয় নানান প্রতিবন্ধকতা। ভোটের আশায় জনপ্রতিনিধরা প্রাপ্ত বয়স্ক বলে জাল জন্মসনদ দিয়ে দেন। অপরদিকে বাবা মায়েরা তার সন্তানকে আর লেখাপড়া করাতে পারবেনা বা খরচ বহন করতে পারবেনা এই অজুহাতে বিয়ের আয়োজন করে থাকেন।
এসকল প্রতিবন্ধকতা থাকলেও প্রশাসন আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে বাল্য বিয়ে ভেঙ্গে দিয়ে মুচলেকা গ্রহণ বা সামান্য জরিমানা করে থাকেন। এতেও কি বাল্য বিয়ে বন্ধ হচ্ছে? শতভাগ না হলেও অংনেকাংশে কমে আসছে। এছাড়া একে সামাজিকভাবে প্রতিহত ও সচেতন করতে পাড়া মহল্লায় নাটক, আলোচনাসভা ও সচেতনতামূলক সভা করে যাচ্ছে বিভিন্ন এনজিও ও সরকারী প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ। তেমনি একটি সভা গত ৩০ নভেম্বর পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের মাঝেরচর গ্রামে অনুষ্ঠিত হয়। পলাশ উপজেলা মহিলা বিষয়ব অধিদপ্তরের আয়োজনে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পলাশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা ইয়াসমিন। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তার, জিনারদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কামরুল ইসরাম গাজী, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রেহানা পারভীন, সাব রেজিস্টার আফসানা বেগম ও সমবায় কর্মকর্তা নাছিমা শাহীন।

শেয়ার করুন

একই বিভাগের আরও খবর
© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব Narsingdiews24.comকর্তৃক সংরক্ষিত