1. admin@narsingdinews24.com : মাসুদ খান : মাসুদ খান
  2. kdalim@gmail.com : ডালিম খান : ডালিম খান
  3. masudkhan89@yahoo.com : মোমেন খান : মোমেন খান
এই মাত্র পাওয়া :
শিবপুরে হাজী আফছার উদ্দিন ভূইয়ার ২য় মৃত্যু বার্ষিকী পালিত হয়েছে শিবপুরে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া চাইলেন আলহাজ্ব হারুনুর রশিদ খান নরসিংদীতে এবার পৌর নির্বাচন: আ.লীগের ৪ বিদ্রোহী প্রার্থী নরসিংদী পৌর নির্বাচনে ১নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে মনোনয়ন জমা দিলেন রাজু মোল্লা নরসিংদীতে এবার পৌর নির্বাচন: আ.লীগের ৪ জন বিদ্রোহী প্রার্থী নরসিংদীর দুটি ইটিভাটায় ৪ লাখ টাকা জরিমানা আদায় নরসিংদীতে ডিবি পুলিশের অভিযানে ২০০ লিটার চোলাইমদসহ ৩ জন গ্রেফতার নরসিংদী পৌরসভার মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন হারুন-অর-রশিদ শিবপুরে দূর্বত্তদের আগুনে খড়ের পুঞ্জ পুড়ে ছাই নরসিংদী পৌর নির্বাচনে ৭নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে জহিরুল ইসলামের ব্যাপক জনমত

ভাস্কর্য বিতর্ক- সরকারের সঙ্গে আলোচনা চান আলেমরা

  • আপডেট সময় : রবিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৪৩ দেখেছেন

চলমান ভাস্কর্য বিতর্ক নিরসনে সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগ্রহের কথা জানিয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমরা। তারা বৈঠক করে মত দিয়েছেন, সরকার চাইলে ভাস্কর্য নির্মাণে বাধা হবেন না তারা। তবে একে শরিয়তসম্মত বলেও স্বীকৃতি দেবেন না। ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে তাদের অবস্থান ও মৌখিক প্রতিবাদ অব্যাহত থাকবে।

তারা বলেছেন, প্রাণীর মূর্তি বা ভাস্কর্য নির্মাণ ইসলামে নিষিদ্ধ। কারও প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে কোরআন-সুন্নাহসম্মত উত্তম বিকল্প খুঁজতে সরকারের প্রতি আহ্বান তাদের। পাঁচ দফা প্রস্তাব নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে যাওয়ার কথাও বলেছেন আলেমরা।

শনিবার যাত্রাবাড়ীতে কওমি মাদ্রাসার সর্বোচ্চ সংস্থা হাইয়াতুল উলিয়ার চেয়ারম্যান মাহমূদুল হাসানের সভাপতিত্বে আলেম-ওলামাদের বৈঠক থেকে এমন মতামত ও সিদ্ধান্ত এসেছে। বৈঠকে অংশ নেওয়া আলেমরা সংবাদমাধ্যমে কথা বলেননি। তারা বলেছেন, যে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে, তা-ই তাদের বক্তব্য।

হেফাজতে ইসলামের সাবেক আমির শাহ আহমদ শফীর মৃত্যুর পর বেফাকুল মাদ্রাসিল আরাবিয়ার (বেফাক) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও হাইয়াতুল উলিয়ার চেয়ারম্যান হয়েছেন রাজনীতির বাইরের মানুষ মাহমুদুল হাসান। তার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শনিবারের বৈঠকে আওয়ামী লীগ সমর্থক হিসেবে পরিচিতসহ প্রায় সব ঘরানার আলেমরা ছিলেন। তাদের সবাই ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে মত দেন।

রাজধানীর দোলাইরপাড়ে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের প্রবেশপথে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নির্মাণ করা হচ্ছে। বিভিন্ন ধর্মভিত্তিক দল ও আলেম ভাস্কর্য ইসলামসম্মত নয় আখ্যা দিয়ে এর বিরোধিতা করছেন। বিরোধিতাকারীদের সাম্প্রদায়িক অপশক্তি আখ্যা দিয়ে আন্দোলনে নেমেছে সরকার সমর্থক বিভিন্ন সংগঠন। এমন পরিস্থিতিতে ভাস্কর্য নিয়ে মতামত জানাতে বৈঠকে বসেন শীর্ষ আলেমরা।

বৈঠকের পর বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভাস্কর্য ইস্যুতে শরিয়তসম্মত সমাধান চান তারা। সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটি এর সমাধান জরুরি। অনাকাঙ্ক্ষিত কোনো পরিস্থিতি সরকার, জনগণ কিংবা আলেম-ওলামা কারও জন্যই সুখকর নয়।

বৈঠকে মাহমুদুল হাসান বলেছেন, রাষ্ট্র বা সরকারের সঙ্গে ওলামায়ে কেরামদের সম্পর্ক কল্যাণকামী উপদেশদাতার। কোরআন সুন্নাহর বাণী শাসক ও দায়িত্বশীলদের যথাসম্ভব মেনে চলার চেষ্টা করা কর্তব্য। আলেমদের শত্রু বা প্রতিপক্ষ মনে করার কিছুই নেই। সংঘাত ইসলাম, জনগণ ও দেশের জন্যই ক্ষতিকর। আলেমদেরও উচিত নয়, অপ্রয়োজনীয় সমস্যা তৈরি বা দ্বীনি পরিবেশের জন্য ঝুঁকি তৈরি না করা। পারস্পরিক হিংসা-বিদ্বেষ আদর্শবান মানুষের পক্ষে শোভা পায় না।

বৈঠক থেকে প্রস্তাব করা হয়, কোনো মহৎ ব্যক্তিকে শ্রদ্ধা জানাতে তার মূর্তি বা ভাস্কর্য নির্মাণ না করে কোরআন-সুন্নাহ সমর্থিত উত্তম বিকল্প সন্ধান করা যুক্তিযুক্ত। এ ছাড়া রাসূল (সা.)-এর অবমাননা বন্ধে দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা, গ্রেপ্তার আলেম-ওলামাদের মুক্তি, অবাধে ওয়াজ মাহফিল আয়োজন ও লাউড স্পিকার ব্যবহারের সুযোগ দেওয়া এবং আলেমদের বিরুদ্ধে বিষোদ্গার ও সাম্প্রদায়িক উস্কানি বন্ধের প্রস্তাব করেন তারা।

বৈঠক সূত্র জানিয়েছে, এসব প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। এজন্য কমিটি করা হবে। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগে মনোনয়ন চাওয়া মুফতি রুহুল আমিনের কাছে বৈঠকের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সর্বসম্মত মতামত এসেছে বিবৃতিতে। এ নিয়ে তিনি এককভাবে কিছু বলতে চান না।

বৈঠকে উপস্থিত আরেক আলেম সমকালকে বলেছেন, মদ, জুয়া, সুদ হারাম। কিন্তু তা দেশে চলছে। আলেমরা এসব বন্ধ করতে বলছেন। কিন্তু নিজে থেকে লাঠি নিয়ে তা বন্ধ করতে চান না। তেমনি সরকার যদি ভাস্কর্য নির্মাণ করতে চায় করুক। আলেমরা বাধা হবেন না; কিন্তু বিরোধিতা করে যাবেন। সেটা তাদের ইমানি দায়িত্ব।

ভাস্কর্যের বিরোধিতা করে আলোচনায় আসা হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক বলেছেন, যে কোনো বিষয়ে মতামত জানানো তার সাংবিধানিক অধিকার। ভাস্কর্যের বিরোধিতাও তার সাংবিধানিক অধিকার। আলেমদের মতামত উপেক্ষা করে ভাস্কর্য বানানো হবে কিনা, তা সরকারের বিষয়। আলেমরা ভাস্কর্য ভাঙতে যাবেন না; কিন্তু একে হালাল বলে স্বীকৃতিও দেবেন না।

গতকালের বৈঠকে হেফাজতের আমির জুনায়েদ বাবুনগরী এবং মহাসচিব নূর হোসেইন কাসেমী সশরীরে ছিলেন না। তাদের প্রতিনিধিরা যোগ দেন। বৈঠকে ছিলেন মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, নুরুল ইসলাম জিহাদি, আব্দুল হামিদ, আবদুল কুদ্দুস, আতাউল্লাহ হাফেজ্জীসহ শতাধিক আলেম।

শেয়ার করুন

একই বিভাগের আরও খবর
© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব Narsingdiews24.comকর্তৃক সংরক্ষিত