শিবপুরে প্রবাসি আল আমিন হত্যার বিচার চেয়ে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

20200213_214714.jpg

বার্তাঃ নরসিংদীর শিবপুর উপজেলার দুলালপুর ইউনিয়নের দরগারবন্দ গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা চান মিয়ার ছেলে বাহরাইনে কর্মরত বাংলাদেশী ব্যবসায়ী আল আমিন এর হত্যাকারী ও মুল আসামী কুমিল্লা জেলার তিতাঁস উপজেলার মজিদপুর গ্রামের কাশেম মিয়ার ছেলে মাহাম্মদ মামুনকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে শিবপুর মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের প্রেসক্লাব কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় ১৩ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার সকালে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন শিবপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব হারুনুর রশীদ খান, সহ সভাপতি ও নরসিংদী জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কাউন্সিলের সহকারী কমান্ডার মোঃ মোহসীন নাজির, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিপ্লব চক্রবর্তী, দুলালপুর ইউপি চেয়ারম্যান মেরাজুল হক মেরাজ, বীর মুক্তিযোদ্ধা বেলায়েত হোসেন ভূইয়া প্রমুখ।
জানা যায়, বিগত ৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে বাহরাইন প্রবাসী একজন ব্যবসায়ী আল আমিন, পিতা- চান মিয়া, সিপিআর নং-৮১০৬৩৮০১০, পাসপোর্ট নং-ঊঅ০৬৩৭৭৭৩, বাহরাইনের নিজ আবাসস্থলে খুন হন। হত্যাকান্ডের প্রায় দুই দিন পর ৭ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। তিনি বাহরাইনের মুহাররক নামক এলকায় ফুলেফেইল মসজিদ সংলগ্ন একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া নিয়ে থাকতেন। বাহরাইন পুলিশের প্রাথমিক তদন্ত অনুযায়ী, উক্ত ফ্ল্যাটে তার সাথে তারই সিআর (ব্যবসায়িক লাইসেন্স) এর কর্মী(ড্রাইভার) ও হত্যকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহভাজন আসামী মোহাম্মদ মামুন, সিপিআর নং- ৮৩০৫৭৩৫২৬, পাসপোর্ট নং-ইঐ ০৩২১৪৬৬ থাকতেন। পুলিশের প্রাথমিক তদন্ত মোতাবেক, হত্যাকান্ডের মুল/প্রধান কারণ অন্যায়ভাবে অর্থ আত্মসাত করার উদ্দেশ্যে এই হত্যাকান্ড করা হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। নিহত আল আমিন বাহরাইনে বিভিন্ন বড় বড় কোম্পানি থেকে কন্ট্রাক্ট নিয়ে কাজ করাতেন। সে সূত্রে তিনি কোম্পানীগুলো থেকে প্রেমেন্টকৃত বড় অংকের টাকা, নিজ ফ্যামিলির জন্য ক্রয়কৃত স্বর্ণলংকার, দামি জিনিসপত্র ইত্যাদি গায়েব হয়ে গিয়েছে মর্মে জানা যায়। এই হত্যাকান্ডের বিষয়ে বাহরাইন পুলিশের তদন্ত মোতাবেক মামুন প্রধান সন্দেহভাজন আসামী, যিনি হত্যাকান্ডের পরক্ষনেই ৫ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে বাহরাইন থেকে বাংলাদেশে চলে যান। এ বিষয়ে বাহরাইন পুলিশ ও সিআইডি কর্তৃক তদন্ত চলমান রয়েছে। মামলা নং- ৪১৬৩/২০১৯, মুহাররক পুলিশ স্টেশন। বাংলাদেশ দুতাবাসও উক্ত তদন্তের বিষয়ে সার্বিক সহযোগীতা করে যাচ্ছে। নিহত আল আমিনের পরিবার দ্রুত লাশ বাংলাদেশে প্রেরণ ও আসামীকে গ্রেফতার করার জন্য সরকার ও প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা

আমাকে শেয়ার করুন

PinIt
scroll to top