রায়পুরায় ৩য় তলার জানালার গ্রিল থেকে যুবকের ঝুলন্তলাশউদ্ধার

20190929_221949.jpg

রায়পুরা প্রতিনিধিঃ

নরসিংদীর রায়পুরায় আলগী বাজারের লন্ডল মার্কেটের একটি ভবনের ৩য় তলার জানালার গ্রিলে ঝুলন্ত অবস্থায় তৌহিদুল ইসলাম (২৫) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে রায়পুরা থানার পুলিশ। নিহতের শরীরের কপাল ও পায়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

নিহত তৌহিদুল উপজেলার মহেশপুর ইউনিয়নের আলগী গ্রামের মো. মোস্তফা মিয়ার ছেলে। রায়পুরা থানার উপপরির্দশক (এসআই) দিদারুল আলম খান জানায়, ভবনের নিচতলায় সিসিটিভি ক্যামারা থাকায় তারা পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে বলে তিনি জানান।

নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টায় তৌহিদুলের পূর্বপরিচিত বাবু নামে এক ব্যক্তি তাকে মোবাইলে ফোন করে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। যাওয়ার সময় তিনি স্ত্রীকে বলেন, বাবুর সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছেন। রাতে বাড়ি না ফেরায় তৌহিদুলের স্ত্রী তার স্বামীর বড় ভাইকে বিষয়টি জানান। সকালে লোক মারফত জানতে পারেন তৌহিদুলের লাশ আলগী বাজারের তৃতীয় তলার একটি ভবনে ঝুলে রয়েছে। পরে স্থানীয়রা থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

নিহতের বড় ভাই আক্কাছ কালের কণ্ঠকে বলেন, তৌহিদুলের সঙ্গে একই ইউনিয়নের মানিকনগর গ্রামের মো. মুকিদ মিয়ার ছেলে পায়েলের পূর্বশত্রুতা ছিল। গত এক মাস আগে পায়েল ও তার সহযোগী বাবুকে সঙ্গে নিয়ে উপজেলার মহেশপুর ইউনিয়নের মানিকনগর নামক স্থানে তৌহিদুলের মোটরবাইকের গতিরোধ করে টাকা দাবি করে। পরে দুই পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি হলে পায়েল ইট দিয়ে তৌহিদুলের মাথা ফাটিয়ে দেয়। স্থানীয়রা এসে উদ্ধার করায় সেই যাত্রায় তিনি প্রাণে বেঁচে যান। ওই ঘটনার পর দিন তৌহিদুল পায়েলের নামে রায়পুরা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

আক্কাছ আরো বলেন, থানায় সাধারণ ডায়েরি করার পর থেকেই পায়েল তার ভাইকে একাধিকবার মেরে ফেরার হুমকিও দেয়। ওই ঘটনার সূত্র ধরেই শনিবার রাতে তৌহিদুলকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যার পর তার লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

মহেশপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রব কালের কণ্ঠকে বলেন, গত এক মাস আগে ঘটে যাওয়া ঘটনার সম্পর্কে তৌহিদুলের পরিবার তাকে অবহিত করলে। তিনি দুটি পক্ষকে ডাকেন। কিন্তু সালিসে পায়েল ও তার সহযোগীরা না আসায় তিনি ওই ঘটনার সমাধান দিতে পারেননি বলে জানান।

রায়পুরা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) দিদারুল আলম খান জানান, ওই ভবনে থাকা সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পুলিশ জানার চেষ্টা করছেন ওই রাতে ভবনটিতে কে বা কারা প্রবেশ করেছিল। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

আমাকে শেয়ার করুন

PinIt

Leave a Reply

scroll to top